“বসতবাড়িতে সবজি চাষ সুস্থ থাকি বারো মাস”
 দেহের পুষ্টির চাহিদা পূরনের জন্য এবং শরীরকে সুস্থ ও সবল রাখার জন্য আমরা প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় প্রচুর সবজি রাখি। বাংলাদেশে বর্তমানে অপুষ্টি একটি প্রধান সমস্যা যদিও আমরা খাদ্যে স্বয়ং সর্ম্পূনতা অর্জন করতে পেনেছি। আর বাড়ির আশেপাশে সবজি চাষ কওে খুব সহজেই আমরা এ অভাব পূরণ করতে পারি। যেহেতু আমাদের জনসংখ্যা অধিক এবং কৃষিভূমি তুলনামূলকভাবে অনেক কম তাই বসতবাড়ির আশেপাশে পতিত জমিতে এবং বাসার ছাদে সবজি চাষ করেত পারি। এভাবে নিজেরা নিজেদের পরিচর্যায় নিরাপদ ও ভেজালমুক্ত পুষ্টিকর সবজি চাষ করে আমরা সুস্থ ও সবল দেহ ও মনের অধিকারী হতে পারি।

মাথাপিছু সবজির প্রাপ্যতাঃ
FAO এর মতে প্রতিদিন মাথাপিছু ২২০ গ্রাম সবজি গ্রহণ করা উচিত । কিন্তু আমাদের দেশে তার অর্ধেকও গ্রহন করা হয় না। তাই এই হার বাড়াতে হলে বাড়ির আশে-পাশে সবজি উৎপাদনের কোন বিকল্প নাই।

পুষ্টি নিরাপত্তার ভূমিকাঃ
দেশের বিপুল দরিদ্র্য জনগোষ্ঠির পুষ্টির চাহিদা পূরণ করতে হলে অবশ্যই বাড়ির আশে-পাশে অধিক পরিমাণে সব ধরনের সবজি চাষ করতে হবে । কারন সব ধরণের সবজিতে বিভিন্ন রকমের ভিটামিন , খনিজ লবণ , প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায়। যা আমাদেরকে সুস্থ, সবল এবং রোগমুক্ত রাখার জন্য খুব বেশী দরকার।

নিরাপদ খাদ্যে ভূমিকাঃ
বসতবাড়ির আশে-পাশে পতিত জমিতে বিভিন্ন রকম সবজি চাষ করে আমরা আমাদের নিজেদের পুষ্টি চাহিদা নিজেরাই পূরণ করতে পারি। এই প্রক্রিয়ায় উৎপাদিত সবজি কীটনাশক ও অন্যান্য ভেজালমুক্ত ফলে আমরা সহজেই নিরাপদ খাদ্র পেতে পারি। কেননা বাজার থেকে প্রাপ্ত সবজি বিভিন্ন ভেজালযুক্ত হওয়ায় আমাদেরকে বিভিন্ন ধরণের মারাত্বক রোগের হুমকীর মধ্যে পড়তে হচ্ছে এবং ধীরে ধীরে মৃত্যুর দিকে ধাবিত হচ্ছি। এমতাবস্থায় নির্ভেজাল সবজি এবং পুষ্টির চাহিদা পূরনে বসতবাড়ির আশে-পাশে সবজি চাষের কোন বিকল্প নাই।
 
দারিদ্র্য -বিমোচনে ভূমিকাঃ
আমাদেও গ্রামঞ্চলে বাড়ির আশে-পাশে যেসব জায়গা পড়ে তাকে আর অল্প অংশেই বিভিন্ন রকম সবজি চাষ কওে আমরা যেমন আমাদের চাহিদা পূরণ করতে পারি তেমনি বাজারে বিক্রি করে নগদ অর্থও পেতে পারি। আর এটা করতে পারলে গ্রামাঞ্চলের বিপুল জনগোষ্ঠির দারিদ্র্য বিমোচন করাও সম্ভব হবে।

মোট সবজি উৎপাদনে ভূমিকাঃ
বাংলাদেশ সবজি উৎপাদনে বিশ্বের তৃতীয় অবস্থানে থাকলেও জনসংখ্যার তুলনায় তা প্রায় অপ্রতুল।জনসংখ্যা বড়ছে এবং চাষযোগ্য ভূমি দিন দিন কমে যাচ্ছে। মাঠে সবজি উৎপাদনও কমে যাচ্ছে। তাই দেশের মোট সবজি উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হলে বসতবাড়ির আশে-পাশে সবজি চাষই এখন মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত।

বাংলাদেশ বর্তমানে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ন এটা আমাদেও নিঃসন্দেহে একটা বড় অর্জন। কিন্তু দারিদ্র্য পীড়িত বিপুল জনগোষ্ঠির এই দেশে পুষ্টির ব্যাপক ঘাটতি রয়ে গেছে। এই ঘাটতি পূরণ এবং সুস্থ-সবল ও সমৃদ্ধ জাতি গড়তে হলে বসতবাড়ির আশে-পাশে সবজি চাষের ওপর সর্বাত্বক গুরুত্ব দেয়া উচিত। আর এটা করতে পারলে পুষ্টির চাহিদা পূরনের পাশাপাশি নির্ভেজাল ও নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ করে দেশের মানুষকে রোগমুক্ত রাখা সম্ভব। এজন্য বসত –বাড়ির আশে-পাশে  সবজি চাষের কোন বিকল্প নেই। আজ আমাদের একটাই স্লোগান হওয়া উচিত “বসতবাড়িতে সবজি চাষ সুস্থ থাকি বারো মাস ”