প্রকৃতি সেজেছে বর্ষার সাজে। এমন দিনে চলে রোদ ও মেঘের লুকোচুরি খেলা। এই রোদ, আবার এই আকাশ থেকে নামছে অঝোর ধারায় বৃষ্টি। আকাশে কখনো মেঘমালা দৌড়ের প্রতিযোগিতায় নামছে, কখনোবা তারাই এই ধরণীর বুকে কান্না হয়ে ঝরছে মুক্তোর মতো। আর প্রকৃতির এই নান্দনিক দৃশ্যগুলো যদি দেখা যায় বারান্দায় গড়ে ওঠা সবুজ বাগানে বসে, তবে সেই অনুভূতি কী রকম হয়, তা শুধু সেখানে বসেই অনুভব করা যাবে। বর্ষাকালে আপনার বাগান অথবা টবের গাছগুলোর সুরক্ষার জন্য বিশেষভাবে যত্নবান হওয়া প্রয়োজন। সেই সঙ্গে লাগাতে পারেন নতুন কিছু গাছ। বর্ষায় বাগানের পরিচর্যা বিষয়ে এই আয়োজনে আপনাদের জন্য উপস্থাপন করা হলো কিছু টিপস।


**  বর্ষায় আপনার বাগান সবসময় ভালোভাবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। কেননা অতি বর্ষণের জন্য পোকা-মাকড় বাগানে আশ্রয় নিতে পারে। 


**  একটি টব থেকে আরেকটি টবের মাঝে যেন কিছুটা ফাঁক থাকে, সে বিষয়ে লক্ষ রাখতে হবে। কারণ বেশি ঘন করে টব রাখলে পোকামাকড় আশ্রয় নেওয়ার আশঙ্কা থাকে।


**  অবিরাম বর্ষণের ফলে টবে অথবা বাগানে পানি জমতে পারে। বাগানে অনেক গাছ আছে, যেগুলো অতিরিক্ত পানি সহ্য করতে পারে না। তাই সেসব গাছের টবে পর্যাপ্ত পরিমাণে যাতে পানি না জমে, সে বিষয়ে সজাগ থাকতে হবে। 


**  যেসব গাছের জন্য পানি বেশি প্রয়োজন, সেগুলো এমন স্থানে রাখুন যাতে বৃষ্টির পানি পর্যাপ্ত পরিমাণে পায়।


**  অনেক সময় দেখা যায়, মাটির ওপর টব রাখা হলে বৃষ্টির কারণে পিঁপড়া বা কেঁচো সেখানে আশ্রয় নেয়। পরে টবে বা গাছের গোড়ায় স্থায়ী বাসা বানিয়ে আস্তে আস্তে গাছের ক্ষতি করে। তাই বৃষ্টির পরপরই এগুলো নির্মূলের ব্যবস্থা করতে হবে। 


**  বর্ষাকালে স্যাঁতসেঁতে, ভেজা আবহাওয়ায় বাগান, ছাদ বা টবের গাছের গোড়ায় শ্যাওলা ও পরজীবী উদ্ভিদ জন্ম নিতে পারে। এসব পরজীবী গাছের খাদ্যরস শুষে নিয়ে গাছের ক্ষতি করতে পারে। তাই এসব পরিষ্কার করতে হবে। 


**  আপনার বাগান বা টবে লাগানো গাছের সমস্যা সমাধানের জন্য প্রয়োজনে কৃষিবিদ বা উদ্যান বিশেষজ্ঞের কাছে পরামর্শ নিতে পারেন। 


**  বর্ষার পানি জমে মশাদের জন্য এক নতুন আবাসভূমি তৈরি করে। তাই এই সময়ে টবে জমে থাকা পানি নিয়মিত পরিষ্কার করা উচিত।


** বর্ষায় যেহেতু রোদ কম থাকে তাই অনেক গাছেরই রোদের প্রয়োজন হতে পারে। এজন্য ছোট টবগুলো সামান্য রোদ উঠলেই খোলা আকাশের নিচে এনে রাখা উচিত।
সূত্রঃ ইত্তেফাক
r