What is the nutritional value of jack fruits and where is the highest production of it in Bangladesh?

উত্তর সমূহ

  1. MOHAIMINUL ISLAM ,কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার

    • কাঁঠালে চর্বির পরিমাণ নিতান্ত কম। এই ফল খাওয়ার কারণে ওজন বৃদ্ধির আশংকা কম।
    • কাঁঠাল পটাশিয়ামের উৎকৃষ্ট উৎস। ১০০ গ্রাম কাঁঠালে পটাশিয়ামের পরিমাণ ৩০৩ মিলিগ্রাম। পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এ জন্যে কাঁঠালে উচ্চ রক্ত চাপের উপশম হয়।
    • কাঁঠালে প্রচুর ভিটামিন এ আছে, যা রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে।
    • কাঁঠালের অন্যতম উপযোগিতা হল ভিটামিন সি। প্রাকৃতিকভাবে মানবদেহে ভিটামিন “সি” তৈরি হয় না। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দাঁতের মাড়িকে শক্তিশালী করে ভিটামিন “সি”।
    • কাঁঠালে বিদ্যমান ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস- আলসার, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ এবং বার্ধক্য প্রতিরোধে সক্ষম।
    • কাঁঠালে আছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের দেহকে ক্ষতিকর ফ্রির‌্যাডিকেলস থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও আমাদেরকে সর্দি-কাশি রোগের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে।
    • টেনশন এবং নার্ভাসনেস কমাতে কাঁঠাল বেশ কার্যকরী।
    • বদহজম রোধ করে কাঁঠাল।
    • কাঁঠাল গাছের শেকড় হাঁপানী উপশম করে। শেকড় সেদ্ধ করলে যে উৎকৃষ্ট পুষ্টি উপাদান নিষ্কাশিত হয় তা হাঁপানীর প্রকোম নিয়ন্ত্রণে সক্ষম।
    • চর্মরোগের সমস্যা সমাধানেও কাঁঠালের শেকড় কার্যকরী। জ্বর এবং ডায়রিয়া নিরাময় করে কাঁঠালের শেকড়।
    • কাঁঠালে আছে বিপুল পরিমাণে খনিজ উপাদান ম্যাঙ্গানিজ যা রক্তে শর্করা বা চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
    • কাঁঠালে বিদ্যমান ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়ামের মত হাড়ের গঠন ও হাড় শক্তিশালী করণে ভূমিকা পালন করে।
    • কাঁঠালে আছে ভিটামিন বি৬ যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।
    • কাঁঠালে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম কেবল হাড়ের জন্য উপকারী নয় রক্ত সংকোচন প্রক্রিয়া সমাধানেও ভূমিকা রাখে।
    • ছয় মাস বয়সের পর থেকে মায়ের দুধের পাশাপাশি শিশুকে কাঁঠালের রস খাওয়ালে শিশুর ক্ষুধা নিবারণ হয়। অন্যদিকে তার প্রয়োজনীয় ভিটামিনের অভাব পূরণ হয়।
    • চিকিৎৎসা শাস্ত্র মতে প্রতিদিন ২০০ গ্রাম তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী মহিলা ও তার গর্ভধারণকৃত শিশুর সব ধরনের পুষ্টির অভাব দূর হয়।
    • গর্ভবতী মহিলারা কাঁঠাল খেলে তার স্বাস্থ্য স্বাভাবিক থাকে এবং গর্ভস্থসন্তানের বৃদ্ধি স্বাভাবিক হয়।
    • দুগ্ধদানকারী মা তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।
    • এই ফল আঁশালো বিধায় কোষ্ঠকাঠিণ্য দূর করে।
    • কাঁঠালে রয়েছে খনিজ উপাদান আয়রন যা দেহের রক্তাল্পতা দূর করে
    কাঁঠাল (Jackfruit)প্রতি ১০০ গ্রাম (৩.৫ আউন্স) পুষ্টিগত মানশক্তি৩৯৭ কিজু (৯৫ kcal)শর্করা চিনি19.08 gখাদ্যে ফাইবার1.5 gস্নেহ পদার্থ0.64 gপ্রোটিন1.72 gভিটামিনসমূহভিটামিন এ সমতুল্যবেটা ক্যারোটিনলুটিন জিজানথেন(1%)5 μg(1%)61 μg157 μgথায়ামিন (বি১)(9%)0.105 mgরিবোফ্লাভিন (বি২)(5%)0.055 mgন্যায়েসেন (বি৪)(6%)0.92 mgপ্যানটোথেনিক অ্যাসিড (বি৫)(5%)0.235 mgভিটামিন বি৬(25%)0.329 mgফোলেট (বি৯)(6%)24 μgভিটামিন সি(17%)13.8 mgভিটামিন ই(2%)0.34 mgচিহ্ন ধাতুসমুহক্যালসিয়াম(2%)24 mgলোহা(2%)0.23 mgম্যাগনেসিয়াম(8%)29 mgম্যাঙ্গানিজ(2%)0.043 mgফসফরাস(3%)21 mgপটাশিয়াম(10%)448 mgসোডিয়াম(0%)2 mgদস্তা(1%)0.13 mgবাংলাদেশের সব জেলাতেই কাঠালের চাষ হয় তবে ঢাকার উচু অঞ্চল, সাভার, ভালুকা, ভাওয়াল ও মধুপুরের গড়, বৃহত্তম সিলেট জেলার পাহাড়ি এলাকা, রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি এলাকায় সর্বাধিক পরিমানে কাঠাল উৎপন্ন হয় । 

r